তুর্কি বাহিনী সিরিয়ায় আগ্রাসন চালানোর কোনো অজুহাত নেই

turki

সংলাপ ॥ সিরিয়া বলেছে, তুরস্ক সীমান্ত থেকে কুর্দি গেরিলারা সরে আসার পর এখন উত্তর সিরিয়ায় সামরিক আগ্রাসন চালানোর জন্য আর কোনো অজুহাত দেখাতে পারবে না আঙ্কারা। সিরিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় রোববার এক বিবৃতিতে এ মন্তব্য করেছে। ওই মন্ত্রণালয় বলেছে, সিরিয়ার সেনাবাহিনীর সহযোগিতায় কুর্দি গেরিলারা তুর্কি সীমান্ত থেকে ৩০ কিলোমিটার দূরে সরে গেছে। এর ফলে সিরিয়ার ভূখন্ডে তুর্কি বাহিনীর আগ্রাসন চালানোর প্রধান অজুহাত সরিয়ে ফেলা হয়েছে।

 গত ৯ অক্টোবর সিরিয়া সীমান্তে আগ্রাসন চালায় তুর্কি সেনাবাহিনী। তুরস্কের সেনাবাহিনী গত ৯ অক্টোবর থেকে ‘সন্ত্রাস বিরোধী যুদ্ধ’ ও ‘তুর্কি-সিরিয়া সীমান্ত থেকে কুর্দি গেরিলাদের মূলোৎপাটনের’ অজুহাতে সিরিয়া সীমান্তে হামলা চালায়। অবশ্য ১৭ অক্টোবর থেকে পাঁচদিনের যুদ্ধবিরতিতে সম্মত হয় তুরস্কের এরদোগান সরকার। যুদ্ধবিরতির ওই সময়সীমা শেষ হওয়ার আগেই তুর্কি ও রুশ প্রেসিডেন্টের মধ্যে এক সমঝোতা হয় যাতে বলা হয় কুর্দি গেরিলারা তুর্কি-সিরিয়া সীমান্ত থেকে সরে যাবে এবং বিনিময়ে তাদের বিরুদ্ধে অভিযান বন্ধ করবে আঙ্কারা।

সিরিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে আরো বলা হয়েছে, সীমান্ত থেকে কুর্দি গেরিলারা সরে আসলে তাদেরকে স্বাগত জানানোর পাশাপাশি সব রকমের সহযোগিতা করবে দামেস্ক। কুর্দি জনগোষ্ঠীর সামনে একথা প্রমাণ করা হবে যে, তারা সিরিয়ার জনগণের অংশ এবং এই জনগণের সঙ্গে ঐক্যবদ্ধভাবে মিলেমিশে বসবাস করার অধিকার তাদের রয়েছে। সিরিয়ায় বিদেশি মদদে সন্ত্রাসবাদ চাপিয়ে দেয়ার পর কুর্দি গেরিলারা প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদকে ক্ষমতাচ্যুত করার প্রচেষ্টায় যোগ দিয়েছিল ॥