হোম পেজ

গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে সংলাপে বাংলাদেশ সত্যব্রত আন্দোলন

গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে সংলাপে বাংলাদেশ সত্যব্রত আন্দোলনমুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়নে প্রধানমন্ত্রীর পথচলায় একাত্ম গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে সংলাপে বাংলাদেশ সত্যব্রত আন্দোলন সংলাপ ॥  গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি স্বাধীনতার মহান স্থপতি বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা দেশরত্ন শেখ হাসিনার আমন্ত্রণে গণভবনে তাঁর সাথে বাংলাদেশ সত্যব্রত আন্দোলনসহ ২৪টি দলের সংলাপ ও মতবিনিময় গত ৭ নভেম্বর সন্ধ্যায় অনুষ্ঠিত হয়। গণভবনের সম্মেলন কক্ষে ওই দিন সন্ধ্যা সাড়ে সাতটা থেকে শুরু হয়ে রাত ১০টা পর্যন্ত এই মতবিনিময় অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ সত্যব্রত আন্দোলন-এর প্রতিনিধি হিসেবে সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি খালেদা খানম রুনু এবং মহাসচিব শাহ্ ড. মোহাম্মদ আলাউদ্দিন আলন অংশ নেন। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে রাজনৈতিক দলগুলোর সাথে প্রধানমন্ত্রীর চলমান সংলাপের অংশ হিসেবে এই মত বিনিময় অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে সত্যব্রত আন্দোলনের প্রতিনিধিগণ আসন্ন নির্বাচন এবং ভবিষ্যতে দেশ পরিচালনার জন্য তাদের সুচিন্তিত ১০-দফা প্রস্তাবনা তুলে ধরেন। মতবিনিময়কালে সত্যব্রতী প্রতিনিধিবৃন্দ বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ [বিস্তারিত...]

মানুষ চায় শান্তি ও উন্নয়নের ধারা অব্যাহত থাকুক

নজরুল ইশতিয়াক ॥ দেশের মানুষ গণতন্ত্র-উন্নয়ন, নির্বাচন চায় তবে সবার আগে চায় শান্তি। এটা চায় বলে অনেক কিছুই মেনে নেয়। পাশের বাড়ীর কেউ একজন রাজনীতি করে রাতারাতি কোটিপতি হলেও তাকে সমাজচ্যূত করে না। সরকারী চাকরী করে পাঁচ দশটা বাড়ী গাড়ীর মালিক হলেও তা নিয়ে প্রতিবাদে মাঠে নামে না। ওয়াজ মাহফিলে, নামাজের খুৎবায় দেশ জাতি সংস্কৃতি মানবতাবিরোধী কথা বলা হলেও দাঁড়িয়ে প্রতিবাদ করে না। খুব জরুরী কাজ না থাকলে নেতা-মন্ত্রী-মেয়রের দরজায় কড়া নাড়ে না। এই মেনে নেয়া বাঙালির উদার্য্যতা সহনশীলতা, বৈশিষ্ট্য। এখান থেকে বের করতে চেয়েছে কেউ কেউ। বিপ্লবের নামে, জনগণের শাসনের নামে, সুশাসনের নামে, কোন কোন পক্ষ উত্তেজিত করতে চেয়েছে বেহেস্ত দোজখ শহীদ গাজীর নামে, আল্লাহ রাসুল কোরআন হাদিস ঈমান আকিদার নামে। এমন পরিসংখ্যান বের করা খুব সহজ নয় যে একজন প্রশিক্ষিত উগ্রসন্ত্রাসী তৈরী করতে কত টাকা ব্যয় হয়। [বিস্তারিত...]

সময়ের সাফ কথা....দেশ ও জাতির কল্যাণে সূচনা হোক শুভ রাজনীতির

সংলাপ ॥ আমরা সব সময় আমাদের সমাজের বিভিন্ন অবক্ষয়, অন্যায়, অত্যাচার নিয়ে ভ্রুকুটি তুলি আর দায়ী করি সমাজ ব্যবস্থা অথবা অপরাধীদেরকে। কিন্তু আমরা কি কখনও চিন্তা করেছি যে, আমাদের সমাজে যারা এইসব অপরাধকর্মে লিপ্ত তাদের সংখ্যা কত? আমরা জানি এর সংখ্যা বেশি নয়। হাতে গোনা কিছু অপরাধীই সমাজকে নিয়ে যাচ্ছে অন্ধকারের পথে। তার মূল কারণ যারা নিজেদের কথিত ভালো মানুষ হিসেবে দাবি করি তাদের নিষ্ক্রিয়তা। আমরা যদি আমাদের স্ব-স্থান থেকে অন্যায় ও অন্যায়কারীদের বিরুদ্ধে সচেষ্ট হই, তাহলে সামাজিক অবক্ষয় থেকে মুক্তি পাবো আর আমাদের আগামী প্রজন্ম পাবে একটি সুশৃঙ্খল সমাজ। আমরা আমাদের নৈতিক মূল্যবোধ কিংবা সামাজিক দায়িত্ববোধের প্রকাশভঙ্গিকে রাজনৈতিক দৃষ্টিকোণ থেকে বিচার করি। এতে আমাদের মধ্যে পারস্পরিক ভ্রাতৃত্ববোধের অবলোপন হচ্ছে দিনে দিনে। একে অন্যের প্রতি হয়ে যাচ্ছি বিদ্বেষী, আর লিপ্ত হচ্ছি নানান সংঘাতে। তাই এই মুহুর্তে আমাদের দরকার দল [বিস্তারিত...]

সাপ ছোবল দিতে পারে

শাহ্ নাসরিন ॥ সামনে একাদশ জাতীয় নির্বাচন। চারদিকে ক্ষমতার গন্ধ। এ দেশের দুর্নীতিবাজ রাজনীতিকরা আবার মাথাচাড়া দিয়ে উঠছে। যে জনগণের রক্ত চুষে খেয়েছে, সেই সরলপ্রাণ সাধারণ মানুষের সমর্থনই তাদের পুঁজি। কাজেই বর্তমানে এ দেশের সাধারণ মানুষকে খেপিয়ে তোলা ও মিথ্যাচার করার অপকৌশলে ব্যস্ত তারা। এ দেশের সাধারণ মানুষের চাওয়া-পাওয়া অত্যন্ত সীমিত, ভাত-কাপড় পেলেই তারা খুশি। দেশের জনগণ চাল-ডালের দাম দিয়ে সরকারের সততা বিচার করে; তাদেরকে খেপিয়ে তোলা যায় অতি সহজেই। সবচেয়ে অবাক লাগে এ দেশের জনগণের এতটুকু সাধ বলতে গেলে কোনো সরকারই পূরণ করতে পারেনি। স্বাস্থ্য, বাসস্থান, শিক্ষার অধিকার নিয়ে তারা মোটেই সচেতন নয়; ভাত-কাপড় পেলেই খুশি। এ দেশের সাধারণ মানুষের একটা বিরাট অংশ অন্ধের মতো ভালোবাসতো এ দেশের কোনো কোনো নেতা-নেত্রীকে। এই ভালোবাসার বিনিময় তারা কতটুকু দিতে পেরেছেন! এই ভালোবাসাকে পুঁজি করেই তারা এ দেশে রাজত্ব করেছেন। [বিস্তারিত...]

বাংলাদেশ সত্যব্রত আন্দোলনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি খালেদা খানম ভোলা-২ আসন থেকে মনোনয়ন চেয়েছেন

বাংলাদেশ সত্যব্রত আন্দোলনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি খালেদা খানম  ভোলা-২ আসন থেকে মনোনয়ন চেয়েছেন সংলাপ ॥ বাংলাদেশ সত্যব্রত আন্দোলনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি খালেদা খানম একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোলা-২ আসন  (দৌলতখান-বোরহান উদ্দিন) থেকে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন চেয়েছেন ।  গত ২৮ কার্তিক’ ১৪২৫, ১২ নভেম্বর’ ২০১৮ সোমবার রাজধানীর ধানমন্ডি ৩/-এ তে আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয় থেকে তিনি মনোনয়নপত্র ক্রয় করেন এবং তা পূরণ করে ওই দিনই জমা দেন। উল্লেখ্য, বাংলাদেশ সত্যব্রত আন্দোলনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হিসেবে খালেদা খানম রুনু দীর্ঘদিন ধরে ভোলাসহ সমগ্র দেশে বিভিন্ন সমাজকল্যাণ ও মানবতাধর্মী কর্মকান্ডে সরাসরি সম্পৃক্ত রয়েছেন। ১৯৬৯ সালে দশম শ্রেণীতে অধ্যয়নকালে ভোলায় আইয়ুববিরোধী ছাত্র-আন্দোলনে অংশগ্রহণের দায়ে প্রথম তিনি কারাদন্ড ভোগ করেন। ১৯৭১-এ দৌলতখানে তাদের গ্রামের বাড়ি থেকে সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধ পরিচালিত হয়। ১৯৭৫-এ বঙ্গবন্ধু হত্যার পর থেকে অদ্যাবধি ভোলা ও দৌলতখানে আওয়ামী লীগের রাজনীতির অন্যতম কেন্দ্র হিসেবে সারা এলাকায় তাদের পরিবারের পরিচিতি [বিস্তারিত...]

বায়ুদূষণ রোধে উঁচু টাওয়ার চীনে!

বায়ুদূষণ রোধে উঁচু টাওয়ার চীনে! সংলাপ ॥ বায়ুদূষণ থেকে নাগরিকদের রক্ষা করতে বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু টাওয়ার তৈরি করে তাক লাগিয়ে দিল চীন। ১০০ মিটারেরও বেশি (৩২৮ ফুট) উঁচু এই টাওয়ার তৈরি করা হয়েছে উত্তর চীনের শিয়ান শহরে। বিষবাতাস শুষে শহরের বাতাসকে তাজা ও বিশুদ্ধ করে তোলাই এই প্রকল্পের লক্ষ্য। চীনের ইনস্টিটিউট অফ আর্থ এনভায়রনমেন্টের বিজ্ঞানীরা দাবি করেছেন, ইতিমধ্যেই এই টাওয়ার শিয়ান শহরের ১০ বর্গ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে বাতাসকে দূষণমুক্ত করতে সক্ষম হয়েছে। উঁচু এই টাওয়ারের একেবারে নিচে রয়েছে পর পর অনেকগুলি গ্রিনহাউস। এগুলি তৈরি করা হয়েছে বিশেষ ডিজাইনে। গ্রিনহাউসগুলি প্রথমে শহরের বাতাসে ভেসে থাকা স্মগ (ধোঁয়া ও ধুলোর মিশ্রণ) টেনে নেয়। এরপর সৌরশক্তি দিয়ে স্মগকে উত্তপ্ত করে তোলা হয়। উত্তপ্ত হলেই বিজ্ঞানের নিয়মে হালকা হয়ে দূষিত বাতাস টাওয়ারের মধ্যে দিয়ে ওপরের দিকে উঠতে থাকে। টাওয়ারের মধ্যেই রয়েছে ঊর্ধ্বগামী দূষিত বাতাসকে পরিশুদ্ধ করার জন্য অনেকগুলি [বিস্তারিত...]

সাংবাদিককে হুমকি ট্রাম্পের!!

সাংবাদিককে হুমকি ট্রাম্পের!! সংলাপ ॥ প্রশ্নের মুখে আবার মেজাজ হারালেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। ‘কী বোকার মতো প্রশ্ন!’ বলে শুধু এড়িয়ে যাওয়াই নয়, আগামী দিনে আরও এক ঝাঁক সাংবাদিকের হোয়াইট হাউসে গিয়ে খবর সংগ্রহের অনুমতি (অ্যাক্রেডিশন) কেড়ে নেয়ার হুমকিও দিয়ে রাখলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। মধ্যবর্তী নির্বাচনের ফল প্রকাশের দিন গত সপ্তাহে হোয়াইট হাউসের সাংবাদিক বৈঠকে সিএনএনের সাংবাদিক জিম অ্যাকোস্টার সঙ্গে বিতন্ডায় জড়ান ট্রাম্প। অভব্যতার অভিযোগে জিমকে ‘ভয়ঙ্কর লোক’ তকমা দিয়ে তার ‘অ্যাক্রেডিশন’ কেড়ে নেওয়া হয়। শুধু তাই নয়, ট্রাম্পের বিরক্তিও ঝরে পড়ল ওই মার্কিন চ্যানেলটির প্রতি। সাংবাদিকের নাম, অ্যাবি ফিলিপ। তাকে নিশানা করে দেশের সব সংবাদমাধ্যমকেই প্রেসিডেন্ট বার্তা দিলেন ‘‘পবিত্র হোয়াইট হাউসের প্রতি সম্মান দেখানোটা সকলের কর্তব্য। এখানে দাঁড়িয়ে আপনি প্রেসিডেন্টকে অসম্মান করতে পারেন না।’’ অ্যাবি জানতে চেয়েছিলেন, নয়া অ্যাটর্নি জেনারেলকে দিয়ে ট্রাম্প কি মার্কিন ভোটে রুশ তদন্তে প্রভাব খাটাতে চাইবেন! প্রশ্নটা অপ্রাসঙ্গিক বা অমূলক নয়। ভোটের [বিস্তারিত...]

সত্য প্রতিষ্ঠার কঠিন সংগ্রামে....

সত্য প্রতিষ্ঠার কঠিন সংগ্রামে.... সংলাপ ॥  অপমান লাঞ্ছনা ব্যঙ্গ-বিদ্রুপ বহুদিনই গা সওয়া হয়ে গেছে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার। আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে যেদিন থেকে শেখ হাসিনা বাংলাদেশে রাজনীতিতে নেমেছেন সেদিন থেকেই এসব তাঁর নিত্যসঙ্গী। ষড়যন্ত্রকারী রাজনীতিজীবীদের সন্ত্রাস, অন্যায়, অত্যাচারের হাত থেকে বাংলাদেশের মানুষকে মুক্তি দিতে একাধিকবার জীবন পর্যন্ত বিপন্ন হয়েছে তাঁর। কিন্তু কোনও কিছুই তাঁকে তাঁর পথ থেকে ভ্রষ্ট করতে পারেনি। অদম্য ইচ্ছাশক্তি একরোখা লড়াকু মনোভাব আর বাংলাদেশের মানুষের প্রতি তাঁর অকৃত্রিম ভালোবাসার কাছে হার মেনেছে সব প্রতিকূলতা পদ-বিপত্তি। বিরোধী নেত্রী হিসেবে দেশের রাজনীতিতে ইতিহাস তৈরি করেছেন তিনি। অক্লান্ত লড়াই, সংগ্রাম করে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর আসনে বসার পরও এই অপমান, যন্ত্রণা থেকে রেহাই মেলেনি তাঁর। পান থেকে চুন খসলেই বিরোধী রাজনীতিজীবীদের কটুক্তি, তুচ্ছতাচ্ছিল্য এমনকী বহুক্ষেত্রে রীতিমতো অশালীন আক্রমণের শিকার হতে হচ্ছে তাঁকে এখনও! বড় ঘটনা ঘটলে তো কথাই নেই, বাংলাদেশের আনাচে-কানাচে ছোটখাটো কোনও ঘটনা [বিস্তারিত...]

কুরআনিক মুসলিম

কুরআনিক মুসলিম সত্য বলবে, সত্যের উপর প্রতিষ্ঠিত হতে সচেষ্ট থাকবে। কুরআনিক মুসলিম কখনো প্রতারণার আশ্রয় নেবে না। সে হবে সকলের বিশ্বস্ত ও আস্থাভাজন। সে মানুষকে বিশ্বাস করবে এবং মানুষ তাকে বিশ্বাস করবে। কুরআনিক মুসলিম কারো অনুপস্থিতিতে নিন্দা করবে না। সত্য ও ন্যায়ের পক্ষে সে দৃঢ়তার পরিচয় দেবে। নির্ভয়ে ও দ্বিধাহীনভাবে সে সত্য প্রকাশ করবে। নিজ স্বার্থবিরোধী হলেও সে ন্যায়ের প্রতি নিষ্ঠাবান থাকবে। সে কখনো অন্যের অধিকারে হস্তক্ষেপ করবে না। সে আত্মসম্মান রক্ষা করবে। কেউ তার প্রতি অন্যায় করুক তা সে বরদাস্ত করবে না। কুরআনিক মুসলিম সিদ্ধান্তে থাকবে অবিচল কিন্তু সিদ্ধান্ত নেয়ার আগে চিন্তাভাবনা করবে এবং পরামর্শ গ্রহণ করবে। সে তার উপর অর্পিত দায়িত্ব ও কর্তব্য যথাযথভাবে পালন করবে। কুরআনিক মুসলিম হবে ভদ্র, বিনয়ী ও দয়ালু। জনকল্যাণমূলক কাজ নিজে করবে এবং অন্যকেও জনকল্যাণমূলক কাজে উৎসাহিত করবে। অকল্যাণমূলক কর্ম থেকে সে নিজে বিরত থাকবে এবং অন্যকে বিরত থাকতে সহযোগিতা করবে। একজন [বিস্তারিত...]

সত্যমানুষকুলের আহ্বান - সত্য দিয়েই সকল অন্ধতার প্রতিরোধ সম্ভব

সংলাপ ॥ আভিধানিক অর্থে, ধর্ম+অন্ধ=ধর্মান্ধ। অর্থাৎ নিজ ধর্ম সম্পর্কে যে অন্ধ সে ধর্মান্ধ। ধর্ম ব্যতীত কোন বস্তু নাই। কিন্তু জড় বস্তু জানে না তার ধর্ম কি। তাই জড় বস্তু ধর্মান্ধ। মানুষও জড় বস্তুর মতো ধর্মান্ধ হয় যখন সে নিজের ধর্ম সম্পর্কে জানে না। ধর্মান্ধ নিজের ধর্ম জানে না তাই জানে না অন্যের ধর্মও। পারিভাষিক অর্থে ধর্মান্ধ হচ্ছে - অন্ধবিশ্বাসের সঙ্গে একগুঁয়েভাবে প্রচলিত প্রথার অনুসরণ। একান্ত রক্ষণশীলতা, অত্যন্ত পক্ষপাত বা পক্ষপাতের আতিশয্য ধর্মান্ধতার সমার্থবোধক শব্দ হিসেবে ব্যবহৃত হয়। ধর্মান্ধ কোন যুক্তি গ্রহণ করে না। সে যতটুকু জানে ততটুকুকেই  চূড়ান্ত বলে মনে করে এবং যারা তার মতের বিরোধিতা করে তাদেরকে সে মূর্খ এবং ধর্মবিরোধী বলে মনে করে। ধর্মান্ধরা দাবি করে - ‘বলার অধিকার কেবল আমার, তুমি কেবল শুনবে। আমি পথ দেখাবো, তুমি সেই পথে চলবে। আমার মত অভ্রান্ত, তুমি ভ্রান্ত। [বিস্তারিত...]

সংলাপ-সংবর্ধনা উত্তরণের পথে নতুন যাত্রা!

সংলাপ ॥ হাক্কানী সূফীতত্ত্বে বলা হয়, দেশে রাজনীতির আর দরকার নেই, এখন প্রয়োজন হচ্ছে জননীতি প্রণয়ন। সাম্প্রতিককালে দেশের দু’টি বিরাট ঘটনা-এক, ক্ষমতাসীন সরকার ও তাদের জোটের সাথে প্রধান বিরোধী শক্তি ঐক্যফ্রন্টের সংলাপ এবং দুই, ঐতিহাসিক সোহ্রাওয়ার্দী উদ্যানে কওমী মাদ্রাসাপন্থী আলেম-ওলামা কর্র্তৃক প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে সংবর্ধনা প্রদান ও প্রধানমন্ত্রীকে ‘কওমি জননী’- উপাধি প্রদান। অভূতপূর্ব এই দুটি ঘটনার প্রতি এদেশের সর্বস্তরের মানুষের, এক কথায় সমগ্র দেশবাসীর দৃষ্টি এমনভাবে নিবদ্ধ হয়েছে যা বাংলাদেশের সাম্প্রতিক রাজনৈতিক ইতিহাসে নিঃসন্দেহে নজিরবিহীন। সরকারবিরোধী বিশেষ করে জামায়াত-বিএনপির রাজনীতির নেতা-কর্মী ও সমর্থকগোষ্ঠী বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার এই সফলতায় বলতে গেলে নির্বাক হয়ে পড়েছে। কারণ, দীর্ঘ দিন ধরে তারা এই কওমি মাদ্রাসা ও মক্তবের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদেরকে সংকীর্ণ রাজনৈতিক স্বার্থে যেভাবে ব্যবহার করে আসছিল তার অবসান ঘটার এক সুবর্ণ সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে এই সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে। [বিস্তারিত...]

পরগাছা-আগাছামুক্ত রাজনীতি

সংলাপ ॥ গাছ-গাছালির মধ্যে যে ক্ষতিকর ও অপ্রয়োজনীয় গাছ বেড়ে উঠে সেটাই আগাছা। গাছের যতœ নেয়া না হলে আগাছাই সেখানে বড় হয়ে দেখা দেয়। এমনকি প্রয়োজনীয় গাছটিকে প্রায় নিঃশেষও করে দিতে পারে আগাছা আর স্বর্ণলতার মতো পরগাছারা। অযত্ন-অবহেলায় থাকা এদেশের যে-কোনো ফসলের জমি, বাগান বা বাগানের গাছের দিকে তাকালে এমন দৃশ্য চোখে-পড়ে সহজেই। গাছের মতো রাজনীতির অঙ্গনেও আগাছা ও পরগাছা জন্মে। কয়েকশ’ বছর ধরে এই বাংলা তথা দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় অসংখ্য বিপ্লবী, স্বাধীনতা সংগ্রামীর নিরবচ্ছিন্ন আন্দোলন ও লড়াই সংগ্রামের ধারাবাহিকতায় বঙ্গবন্ধু ১৯৭১’র ৭ মার্চে লক্ষাধিক মানুষের সামনে এসে ঘোষণা দিলেন, ‘এবারের সংগ্রাম, আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম’। এরই ধারাবাহিকতায় বহু আত্মত্যাগে এলো ১৬ ডিসেম্বর, বিশ্বের মানচিত্রে স্থান পেলো স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ। পাকিস্তানের কারাগার থেকে ফিরে এসে ১০ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান লাখো জনতার সমাবেশে বললেন, ‘আমার [বিস্তারিত...]

অসহায় বৃত্তে বন্দী মানবতা!

অসহায় বৃত্তে বন্দী মানবতা! সংলাপ ॥ যুদ্ধের বিরুদ্ধে প্রতিবাদের মুখ হয়ে উঠেও জীবনের লড়াইটা শেষ পর্যন্ত হেরে গেল ইয়েমেনের শিশু আমাল হুসেন। এক মার্কিন দৈনিকে প্রকাশিত প্রতিবেদনের ভিত্তিতে গত সপ্তাহে ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছিল তার ছবি। না-খেতে-পাওয়া, কঙ্কালসার চেহারার সাত বছরের আমাল এই ক’দিনে যুদ্ধদীর্ণ ইয়েমেনের মুখ হয়ে উঠেছিল। তার পরিবারের তরফে জানানো হয়েছে, আসলাম শহরে এক শরণার্থী শিবিরে আমাল মারা গিয়েছে। এক সাক্ষাৎকারে আমালের মা মরিয়ম আলি বলেছেন, ‘‘আমার মন ভেঙে গিয়েছে। আমাল খুব হাসিখুশি ছিল। আমার অন্য বাচ্চাদের নিয়ে খুব চিন্তা হচ্ছে।’’ দু’চোখে শূন্যতা, পাঁজর বার করা আমালের ছবি ফেসবুকে অন্তত ৪৩ হাজার বার শেয়ার করা হয়েছিল। ফেসবুক কর্তৃপক্ষ ছবিটিকে ‘উলঙ্গ, তাই যৌন ইঙ্গিতপূর্ণ ও অশালীন’ তকমা দিয়ে ব্লক করতে শুরু করে। আর তাতেই প্রতিবাদের ঝড় তোলেন নেটিজেনরা। মর্মান্তিক একটি ছবিকে এ ভাবে ব্লক করে দিয়ে ইয়েমেনের বাস্তবকেই অস্বীকার করা হচ্ছে বলে সরব [বিস্তারিত...]

ইয়েমেনের ভয়ঙ্কর সঙ্কট দেখছে না বিশ্ব!!!

ইয়েমেনের ভয়ঙ্কর সঙ্কট দেখছে না বিশ্ব!!! সংলাপ ॥ নাহ্, কোনও কারণেই সৌদি আরবে মারণাস্ত্র বিক্রি বন্ধ করা যাবে না, এটা করে অযথাই নিজেকে শাস্তি দেব নাকি? আমেরিকা না বেচলে পুতিন বা জিনপিং ঠিকই অস্ত্রবিক্রির সুযোগটা হাতিয়ে নেবে...’’ সৌদি সাংবাদিক জামাল খাশোগিকে তুরস্কের সৌদি দূতাবাসের ভেতর খুন করে তার শরীর হাড্ডি কাটার করাত দিয়ে কেটে (তুরস্কের সরকারি ভাষ্যমতে) গুম করে ফেলার খবর ছড়িয়ে পড়ার পর সৌদি আরবে আমেরিকার অস্ত্র বিক্রি বন্ধ করা হবে কি না জানতে চাইলে আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প যা বলেন তার সারমর্মটা মোটামুটি এ রকমই দাঁড়ায়। ট্রাম্প অনায়াসে তিলকে তাল করতে পারেন, আমেরিকার পেশাদার রাজনীতিকরা যে কথাগুলো মুখে বলার সাহস করেন না, সেগুলোও অনায়াসে বলে দিতে পারেন। তিন মিনিট পরে সেই কথাটাই যে আবার উল্টে যাবে না, তার কোনও নিশ্চয়তা নেই, কিন্তু মাঝে মাঝে অকাট সত্যিটা বলে যে দেন তাতেই এক ধরনের স্বস্তি [বিস্তারিত...]

উগ্রধর্মান্ধদের তান্ডবে উত্তাল পাকিস্তান

উগ্রধর্মান্ধদের তান্ডবে উত্তাল পাকিস্তান সংলাপ ॥ ধর্মদ্রোহ আইনের গিলোটিন থেকে খ্রিস্টান মহিলা আসিয়া বিবিকে বাঁচানোর পরই পাকিস্তান ছাড়লেন তার আইনজীবী। গত সপ্তাহে তার সওয়ালের ভিত্তিতে আসিয়া বিবির মৃত্যুদন্ড রদ করে পাক সুপ্রিম কোর্ট। তার পর থেকেই কার্যত কট্টরপন্থীদের দখলে পাকিস্তান। ৪৭ বছর বয়সী এই খ্রিস্টান মহিলাকে মৃত্যুদন্ডের হাত থেকে বাঁচানোর জন্য তার আইনজীবী সইফুল মুলুককেও নিশানা করেছে কট্টরপন্থী রাজনৈতিক ও জঙ্গি সংগঠনগুলি। শেষ পর্যন্ত নিজের প্রাণ বাঁচাতে গত সপ্তাহে সকালেই দেশ ছাড়লেন তিনি। একই সঙ্গে তার পরিবারের নিরাপত্তার ব্যবস্থা করার জন্য সরকারের কাছে আবেদন জানিয়েছেন এই পাক আইনজীবী। ২০১০ সালে ধর্মদ্রোহিতার অভিযোগে আসিয়া বিবিকে ফাঁসির সাজা দিয়েছিল পাকিস্তানি আদালত। পাকিস্তান পাঞ্জাবের শিকরপুরায় মাঠে বেরি তুলতে গিয়ে দুই প্রতিবেশী মহিলার সঙ্গে বচসা বাধে খ্রিস্টান মহিলা আসিয়া নুরিন ওরফে আসিয়া বিবির। বচসার সময় ইসলাম ধর্মগুরুকে অবমাননা করেছেন, আসিফার বিরুদ্ধে এই অভিযোগ আনা হয়েছিল। যদিও পরে সেই [বিস্তারিত...]

সময়ের দাবী - দেশ ও জনগণের স্বার্থে রাজনৈতিক সমঝোতা

সংলাপ ॥ দশম জাতীয় সংসদের শেষ অধিবেশন ছিল গত ২৯ অক্টোবর। একটি সংসদের নির্ধারিত মেয়াদকাল সমাপ্তির পথে। সারাদেশে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে সর্বমহলে চলছে জোর আলোচনা। ক্ষমতা আর আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে জোটের রাজনীতি বেশ ঝাঁকিয়ে বসেছে কিন্তু চাপা উত্তেজনায় সারা দেশের মানুষ। নির্বাচনের পূর্বে সংলাপ শুরু করার জোর আবেদন ছিল বিরোধী সব মহল থেকে বর্তমান সরকারের কাছে। সরকারি দলের নেতাদের বক্তব্যে সংলাপ বিষয়ে যখন হতাশার জন্ম নিচ্ছিল ঠিক তখনই বিরোধী ঐক্যফ্রন্টের নেতার চিঠি আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে। গণতন্ত্রকে সুসংহত করতে তিনিও দেরি না করে ইতিবাচক পদক্ষেপ নিয়ে ঐক্যফ্রন্টের নেতাকে সংলাপের দিনক্ষণ জানিয়ে পত্র পাঠালেন। হঠাৎ যেন বাংলার রাজনীতিতে সমঝোতার সুর! রাজনৈতিক দলগুলোর সাথে সংলাপ শুরু করা জরুরী হয়ে পড়েছিল কারণ দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে। রাজনীতির মাঠে যারা আছেন তারা তো অবশ্যই, বুদ্ধিজীবী, [বিস্তারিত...]

বাংলাদেশে অতি-রাজনীতির সঙ্কট

* ভাল যদি সমর্থিত না হয়, খারাপ যদি ধিকৃত না হয়, তা কি সমাজ-রাষ্ট্রের জন্য কল্যাণকর হতে পারে? * মানুষের অভ্যন্তরীণ ভাবনার কাঠামো পরিবর্তনের চেষ্টা না করে  বাহ্যিক কাঠামোর পরিবর্তন কি সম্ভব? * সামাজিক-অর্থনৈতিক সমস্যা বিশ্লেষণ ও সমাধানের জন্য প্রয়োজন পক্ষপাতশূন্য, যুক্তিশীল, ও স্বচ্ছ  চিন্তা। সংলাপ ॥ এক সময় বাঙালির গর্ব করার বিষয় ছিল তার রাজনৈতিক বোধ। আমরা রাজনীতি সচেতন, সাম্প্রদায়িক নই, জাত-পাতের পরোয়া করি না, ইত্যাদি। অর্থাৎ আদর্শ গণতান্ত্রিক পরিবেশের জন্য যা যা অপরিহার্য সেগুলো আমাদের ছিল। মনে প্রশ্ন জাগে, মানুষ রাজনীতি করে কেন? সময়ের পরিক্রমায় জানা যায়, জীবনের প্রতিটি পরতে জড়িয়ে  রয়েছে রাজনীতি। তা সে দেশ শাসন হোক বা অর্থনীতি। শিক্ষার জগৎ বা খেলার জগৎ। রাজনীতি ছাড়া জীবন অচল।  নিজেকে প্রশ্ন করে দেখি, আমি রাজনীতির কোন দিকে? উত্তর যেন একটা পুরনো গান , ‘আমি বাম দিকে রই না, আমি [বিস্তারিত...]

সত্য সন্ধানে সংলাপ